চুল পড়া রোধ করতে এবং নতুন চুল গজাতে পেঁয়াজের রস |

0
229
পেঁয়াজের তেল বানানোর নিয়ম
পেঁয়াজের তেল বানানোর নিয়ম

নারীর এলো কেশেতে সুন্দর। কেননা শাড়িতে যেমন নারী তেমনে কেশেতেও নারী। আর নারীদের সৌন্দর্য চুলে। চুল যত সুন্দর, ঘন আর লম্বা ততই যেন সুন্দর লাগে নারীকে। আগে দাদী নানীদের চুল গুলো ছিলো সুন্দর, লম্বা আর ঘন। কেননা তারা কোনো ক্যামিকেল কিছু ব্যবহার করত না। প্রাকৃতিক উপায়ে তারা চুলের যত্ন নিতো। সেই আগের চুলের সৌন্দর্যতা এখন আবার ফিরে এসেছে ললনাদের কাছে। তবে চুলের যত্ন না নিলে তো চুল লম্বা আর সুন্দর হবেনা। চুল লম্বা চাইলে চুলের যত্ন নিতে হবে। চুলের যত্নে এক বিশেষ উপাদান হলো পেঁয়াজ। পেঁয়াজ নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে। পেঁয়াজ চুলে পুষ্টিগুন জমায়। পেঁয়াজের রসকে বিভিন্ন ভাবে চুলে লাগিয়ে ব্যবহার করা যায়। পেঁয়াজের রসের বিভিন্ন ঘরোয়া উপাদান বানিয়ে চুলে ব্যবহার করতে পারবেন। আসুন জেনে নেই পেঁয়াজ ব্যবহার করে দ্রুত চুল বৃদ্ধি করার উপায়।

 

১।পেঁয়াজের রস আমাদের নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে। আবার পেঁয়াজের রস এর সাথে শ্যাম্পু ব্যবহার করলে চুলের সৌন্দর্য আর উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পায়। আমরা সচরাচর গোসল করার সময় চুলে শ্যাম্পু ব্যবহার করে থাকি। ঠিক একইভাবে ১টি বাটিতে পরিমাণ মতো পেঁয়াজের রস নিয়ে সেখানে পরিমাণ মতো শ্যাম্পু নিয়ে একসাথে মিশিয়ে স্বাভাবিকভাবে চুলে লাগিয়ে ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন চুল অনেক সৌন্দর্য আর আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে। আমরা প্রতিদিন চুলে শ্যাম্পু করি না। তাই সপ্তাহে ২বার এইভাবে শ্যাম্পু করতে পারেন।

 

২।আমরা আগেও জানি লেবু আমাদের খুশকি সমস্যা দূর করে। আর লেবু আমাদের মাথার ত্বকে ভিটামিন সি এর যোগান দেয়। এবং মাথার ত্বক কে পরিষ্কার করে। আপনি এক্ষেত্রে একটি বাটিতে পরিমাণ মতো (৩চামচ পেঁয়াজের রস আর ১চামচ লেবুর রস) পেঁয়াজের রস এর সাথে লেবুর রস মিশিয়ে নিন (আপনার চুলের পরিমাণ অনুযায়ী)। এবার এই রস আপনার মাথার ত্বকে আর চুলের গোড়ায় ভালোভাবে লাগিয়ে নিন। এবং ধীরে ধীরে ম্যাসাজ করুন। তারপরে ভালোভাবে চুল ধুয়ে ফেলুন। আপনি চাইলে সপ্তাহে ৩ থেকে ৪বার এইভাবে চুলে লাগাতে পারেন। তবে প্রত্যেকদিন চুলে শ্যাম্পু করতে হবে না। ভালোভাবে চুল ধুয়ে ফেললেই হবে।

 

৩।মধু আমাদের মাথার ত্বক পরিষ্কার রাখে। আর চুলের গোড়া পরিষ্কার করে নতুন চুল গজায় আর চুল কে নরম মোলায়েম রাখে। তাই মধুর সাথে পেঁয়াজের রস মিশিয়ে প্যাক বানিয়ে ব্যবহার করতে পারুন। এক্ষেত্রে আপনি আধা কাপ পেঁয়াজের রস নিয়ে সেখানে ১ টেবিল চামচ মধু ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এই রস এবার ভালোভাবে মাথায় লাগিয়ে নিন। এরপরে ম্যাসাজ করুন। যেহেতু মধু তাই চুলে আটা আটা লেগে যেতে পারে। তাই ম্যাসাজ করার পরে চুল ভালোভাবে শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। তাই সপ্তাহে ২বার এই প্যাক ব্যবহার করতে পারুন। সবচেয়ে দারুণ বিষয় হলো আপনি চাইলে এই মধু আর পেঁয়াজের মিশ্রণ খেতে ও পারেন।

 

৪। আমরা তো সাধারণত চুলে তেল দিয়ে থাকি। কেননা তেল আমাদের চুল লম্বা রাখে আর চুলের পুষ্টিগুণ বাড়ায়। তাই কম বেশি সকলে চুলে তেল ব্যবহার করেন। এই ক্ষেত্রে তেল এর সাথে পেঁয়াজের রস মিশিয়েও চুলে লাগাতে পারেন। এইখানে ৩টেবিল চামচ পেঁয়াজের রস এর সাথে ১টেবিল চামচ নারকেল তেল কিংবা অলিভ অয়েল ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এইবার এই তেলটি মাথায় ভালোভাবে ঘষে ঘষে লাগান। অন্তত গোসল করার ৪০ মিনিট আগে চুলে এইভাবে তেল লাগিয়ে রাখবেন। এরপরে গোসল করে নিন কিংবা চুলে ধুয়ে নিন।

 

৫।এতক্ষন আমরা দেখলাম পেঁয়াজের রসের সাথে আরো বিভিন্ন উপাদান মিশিয়ে কীভাবে চুলের যত্ন নেয়া যায়। এখন জানব চুলে সরাসরি পেঁয়াজের রস ও লাগানো যায়। এক্ষেত্রে আপনি কয়েক টুকরা পেঁয়াজ কে একসাথে নিয়ে ভালোভাবে ব্লেন্ড করে রস নিয়ে নিন। এই রস এবার আপনার মাথার ত্বকে সরাসরি লাগান। অন্তত ৩০ মিনিট ধরে মাথায় লাগিয়ে ম্যাসাজ করুন। এরপরে ভালোভাবে চুলে শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

 

উপরে আপনারা যে কয়েকটি পদ্ধতি দেখলেন তা আপনারা সহযে বানিয়ে ব্যবহার করতে পারবেন। চুলের যত্নে এই পদ্ধতি গুলো ধারুণ কাজ করে। আর পেঁয়াজের রস সেই আগের কাল থেকেই ঘরোয়া ভাবে চুলের যত্নে ব্যবহার করে আসছেন। তাই নিয়মিত চুলের যত্ন নিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here